Header Ads

Header ADS

ইউটিউবের জন্য ক্যামেরা মাইক্রোফোন লেন্স

#ইউটিউবের_জন্য_DSLR_ক্যামেরাঃ আমাদের অনেকেই ইউটিউব শুরু করার আগে সিদ্ধান্তহীনতায় পরি ক্যামেরা নিয়ে আমরা অনেক সময় সিদ্ধান্ত নিতে পারি না কোন ক্যামেরা কিনবো। চলুন দেখে নেই ইউটিউবের জন্য কয়েকটি ক্যামেরা
1. Nikon D3500 এই ক্যামেরাটি মূলত এন্ট্রি লেভেলের ক্যামেরা কিন্তুু এই ক্যামেরার ভিডিও এবং ইমেজ কোয়ালিটি অনেক ভালো। এটি ২৪ মেগাপিক্সেলের একটি ক্যামেরা, এর ভিডিও রেজুলেশন ১৯২০ x ১০৮০ পিক্সেল। আপনারা যারা নাইকন ব্র্যান্ডের ক্যামেরা পছন্দ করেন এবং আপনার বাজেট যদি ৩৫-৪০ হাজারের মধ্যে হয় তবে চোখ বন্ধ করে ক্যামেরাটি কিনতে পারেন। বাজেট ক্যামেরা হিসেবে খুব ভালো একটি ক্যামেরা।
2. Canon 200D ইউটিউবের জন্য এই ক্যামেরাটি একটি বেস্ট ক্যামেরা, কারন এভারেজ বাজেটের মধ্যে খুব ভালো একটি ক্যামেরা। এটিও ২৪ মেগাপিক্সেলের একটি ক্যামেরা, এর ভিডিও রেজুলেশন ১৯২০ x ১০৮০ পিক্সেল পাশাপাশি এই ক্যামেরার আছে রোটেটিং ডিসপ্লে, চমৎকার আইএসও, দারুন ভিডিও কোয়ালিটি সবমিলিয়ে দারুন একটি ক্যামেরা। আপনার বাজেট যদি ৪০-৪৫ হাজারের মধ্যে হয় তবে আপনি ইউটিউবের জন্য ক্যামেরাটি চোখ বন্ধ করে কিনতে পারেন।
3. Canon 80D এটি একটি ইন্টারমিডিয়েট লেভেলের ক্যামেরা। ভ্লগিং এর জন্য বা ইউটিউবের ইনডোর-আউটডোর ভিডিও রেকর্ডিং এর জন্য খুব ভালো ভিডিও কোয়ালিটির একটি ক্যামেরা। আপনি যদি মজবুত বডির কোনো ক্যামেরা খুজে থাকেন তা হলে এই ক্যামেরাটির বিকল্প নেই। এটিও ২৪ মেগাপিক্সেলের একটি ক্যামেরা, এর ভিডিও রেজুলেশন ১৯২০ x ১০৮০ পিক্সেল পাশাপাশি এই ক্যামেরার আছে রোটেটিং ডিসপ্লে। আপনার বাজেট যদি ৬০-৭০ হাজারের মধ্যে হয় তবে আপনি এই ক্যামেরাটি নিতে পারেন।
4. Canon 5D Mark IV: এটি একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন প্রোফেশনাল ক্যামেরা, আপনি যদি ইউটিউবে প্রোফেশনালি ভিডিওগ্রাফি, সিনেমাটোগ্রাফি বা ফটোগ্রাফি করতে চান তবে এই প্রোফেশনাল ক্যামেরাটি কিনতে পারেন। এটি একটি ব্যায়বহুল ক্যামেরা, এই ক্যামেরা দিয়ে আপনি 4K ভিডিও করতে পারবেন। উন্নতমানের ফুল ফ্রেম এই ক্যামেরাটিতে আছে ৩০.৪ মেগাপিক্সেল সেন্সর, ৪০৯৬ x ২১৬০ পিক্সেল ভিডিও রেজুলেশন। এই ক্যামেরা কিনতে হলে আপনাকে ১ লক্ষ্য ৮০ হাজার থেকে ২ লক্ষ্য টাকা গুনতে হবে।
*মিররলেস ক্যামেরা হিসেবে Sony Alpha বা Panasonic Lumix ব্যাবহার করতে পারেন আর একশন ক্যামেরার জন্য GoPro Hero7 ব্যাবহার করতে পারেন GoPro Hero7 চমৎকার একটি একশন ক্যামেরা, এই ক্যামেরার সাহায্যে স্মুথলি 4k ভিডিও করতে পারবেন।
#ইউটিউবের_জন্য_মাইক্রোফোনঃ
1.Panasonic Boom Microphone: ইউটিউবে ভিডিও বা অন্যান্য সাক্ষাত্কারের জন্য বেশ ভালো একটি মাইক্রোফোন এটি। এর নয়েজ রিডাকশন সিস্টেম এর সাহায্যে ব্যাকগ্রাউন্ডের বিভিন্ন শব্দ প্রতিরোধ করে মূল শব্দ স্পষ্টভাবে রেকর্ড করা যায়। দুরের শব্দ রেকর্ড করতে এর Tele মোড খুব কাজের। এই মাইক্রোফোনটির বাজার মুল্য ১৫০০-১৬০০ টাকা পড়বে।
2. Boya M1 Microphone: আপনি যদি ইউটিউবের জন্য ক্লিপ মাইক্রোফোন খুঁজে থাকেন তবে এই মাইক্রোফোনটি আপনার জন্য একটি বেস্ট মাইক্রোফোন। এই মাইক্রোফোনটি স্মার্টফোন, কম্পিউটার এবং ডিএসএলআর ক্যামেরার সাথে কাজ করে। যে কোনও ধরণের ভিডিও বা পেশাদারী কাজের জন্য আপনার ভয়েস আরও স্পষ্ট করতে এই মাইক্রোফোন ব্যাবহার করতে পারেন। দূরত্ব থেকে ভয়েস রেকর্ড করার জন্য বেস্ট মাইক্রোফোন কারন এটি 6 মিটার তারের একটি মাইক্রোফোন । এটি যেকোনও অ্যান্ড্রয়েড এবং iOS ডিভাইসগুলির সাথে কাজ করে। ১১০০-১২০০ টাকা বাজেটের মধ্যে এটি আপনার বেস্ট চয়েস হতে পারে।
3. BM 800: এটি একটি কনডেন্সার মাইক্রোফোন, এর সাউন্ড কোয়ালিটি এক কথায় অসাধারন। নয়েজ রিমুভ, ক্লিয়ার সাউন্ড, ইকো ইফেক্ট, স্টুডিও রেকর্ডিং কোয়ালিটি সবই আছে এই মাইক্রোফোনে। তুলনামূলক ভাবে এই মাইক্রোফোন অন্য মাইক্রোফোনের তুলনায় একটু দামী। স্টুডিও রেকর্ডিং মাইক্রোফোন হিসেবে এটি আপনার বেস্ট চয়েস হতে পারে। এই সিরিজের BM 100FX মাইক্রোফোনটিও খুব ভাল একটি মাইক্রোফোন। এই মাইক্রোফোনটির বাজার মুল্য ২৫০০-৩০০০ টাকা পড়বে।

#ইউটিউবের_জন্য_লেন্সঃ ইউটিউবে ভিডিও বানানোর জন্য লেন্সের ব্যাবহার মূলত নির্ভর করে আপনি কি ধরনের ভিডিও তৈরি করবেন। আপনি যদি কাছের ফেস, কুকিং বা রিভিউ এর ভিডিও বানান তাহলে ক্যামেরার যে কিট লেন্স ১৮-৫৫ আছে সেটা দিয়েই সুন্দর ভিডিও করতে পারবেন। যদি দূর থেকে কিছু ভিডিও করার দরকার পরে তাহলে ১৮-১৩৫ লেন্স ব্যাবহার করতে পারেন। এছাড়াও দূরের ছবি তুলতে বা ভিডিও করতে জুম লেন্স যেমন ১৮-১২৫ মি.মি. অথবা ১৮-২০০ মি.মি বা ৫৫-২১০ মি.মি ব্যাবহার করতে পারেন। স্ট্রিট ভিডিওগ্রাফি, পোর্ট্রেটের জন্য প্রাইম লেন্স ব্যবহার করতে পারেন যেমন ক্যানন ৫০ মি.মি লেন্স।
This post first publised On Trickbd.com

No comments

Powered by Blogger.