Header Ads

Header ADS

অ্র্যান্ড্রয়ে Safe Mode (নিরাপদ মোড) কি? সেফ মুড কিভাবে করবেন? [পর্ব-১]

Safe Mode (সেফ মুড) কি? Safe Mode কিভাবে করবেন? এটি কিভাবে বন্ধ করবেন? এর উপকারিতা কি?  [পর্ব-১]

safe mode


আমি মনে করি প্রত্যেক অ্যান্ড্রয়ে ফোন ব্যাবহার করির Safe Mode (সেফ মুড) সম্পর্কে জানা দরকার!

একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যাতিত আমাদের প্রতিদিনের পথ চলা কঠিন হয়ে পরেছে, অ্যান্ড্রয়েড ফোনতো আমরা সবাই ব্যাবহার করি। অনেক সময় আমরা আমাদের নিজের অথবা অন্যকারো অ্যান্ড্রয়েড ফোনের স্ক্রিনের নিচে বাম পাশে ঝাপসা একটা লেখা দেখতে পাই “Safe Mode” (সেফ মুড)! আসলে Aএই লেখাটার মানেকি? এটা এখানে আসেই বা কেনো? আমরা যারা Safe Mode সম্পর্কে না জানি তারা এই লেখাটি দেখে ঘাবরে যাই বা ভয় পাই, আসলে এটা ভয় পাওয়ার মতো কিছু নয়। আমরা অনেকেই হয়তো জানি না প্রায় সব অ্যান্ড্রয়েড ফোনেই এই ফিচারটি দেওয়া থাকে। আজকে আমরা Safe Mode সম্পর্কে সব কিছু জানার চেষ্টা করবো, চলুন তাহলে শুরু করি।

সেফ মুড (Safe Mode) কি?

Safe Mode হলো এমন মোড বা অবস্থা যে অবস্থায় আপনি নিরাপদ বা সুরক্ষিত থাকবেন।
সরি! আপনি না, আপনার শখের  ফোনটি সুরক্ষিত থাকবে।

আমরা যারা কম্পিউটার ব্যাবহার করি তার সবাই জানি কখনো আমাদের কম্পিউটারে যদি software জনিত সাধারন কোন সমস্যা দেখা দেয় তাহলে কম্পিউটার অটোমেটিক safe mode এ রান করে, এর কারন হলো safe mode এ রান করলে কম্পিউটারের software জনিত সাধারন সব সমস্যা অতি দ্রুত সমাধান হয়ে যায়।


 অ্যান্ড্রয়েড ফোনের ক্ষেত্রেও safe mode একই কাজ করে। safe mode বিশেষ করে গেমস্ খেলার সময় সবচেয়ে বেশি নিরাপদ। আমরা মাধারণত system app এর ছারাও আরও অনেক app ব্যাবহার করে থাকি যা ফোন কেম্পানি গুলো ফোনের সাথে দেয় না এগুলো আমাদের  আলাদা ভাবে install করে ব্যাবহার করতে হয়।

এখন কথা হলো আমরা যখন safe mode এ ফোন রান করাবো  তখন system app ব্যাতিত অন্য কোন app ব্যাবহার করতে পারবোনা,  মানে  হলো যেই ‍app গুলো আমরা install করে ব্যাবহার করতাম সেগুলো চলবেনা। এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। আপনি যখন নরমাল মুডে চলে আসবেন তখন আবার এই app গুলো ব্যাবহার করতে পারবেন।আসলে safe mode আনেক সহজ ও নিরাপদ বা সুরক্ষিত একটি প্রক্রিয়া এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই, আপনারা যদি এর সুবধিা ও এর ব্যাবহার করাটা একবার বুঝতে পারেন তাহলে safe mode নিতে কখনোই ভয় পাবেনা।  

আপনার ফোনে Safe Mode এ নিবেন কিভাবে?

Safe Mode এ যাওয়ার অনেকগুলো পদ্ধতি রয়েছে, আমার জানা সবগুলো পদ্ধতি আপনাদেরকে বলবো আপনারা ট্রাই করে দেখবেন আপনাদের ফোন কোনটা কাজ করে। কারন সব ফোনে সব পদ্ধতি কাজ করেনা।

#প্রথমে আপনার ফোনের  পাওয়ার বাটন চাপুন মানে যে বাটনটি দিয়ে ফোন অন-অফ করেন সেটা চাপুন সেখান থেকে Power off  লেখাটির উপর ট্যাব করে ধরে রাখুন। তাহলে দেখবেন নতুন একটা পপ আপ আসবে সেখানে লেখা থাকবে Reboot to Safe mode ঠিক নিচের ছবির মতো আসবে, এখান থেকে ok ক্লিক করুন তাহলে দেখবেন ফোনটি রিস্টার্ট নিয়ে Safe mode এ চলে গেছে।


#উপরের ঐ পদ্ধতিতে  যারাদের ফোন Safe Mode এ রান হয়না তারা এই পদ্ধতিটি ট্রাই করে দেখতে পারেন  বর্তমানের কিছু স্যামস্যাং ফোনে এই ভাবে Safe mode আনতে হয়। প্রথমে আপনার ফোনটি অফ (Off) করুন। এর পর পাওয়ার বাটন চেপে ফোনটি অন করুন,ফোনটি অন হওয়ার সময় যখন বুট লোগো/Boot animation দেখতে পাবেন সাথে সাথে ভলিউম + বা ভলিউম - বাটন চেপে ধরে রাখুন এবার ফোনটি অন হওয়ার পর ছেরে দিন দেখবে Safe mode চালু হয়ে গেছে।

#কিছু কিছু ফোনে শুধু মাত্র মেনু বাটন চেপে ধরে সেফ মোড অন করা যায়। Samsung  ফোনের মাঝে যে বাটনটা থাকে সেটা হলো Home Button, এই Home Button এর ঠিক বাম পাশের বাটনটাই হলো Menu Button। যদি মেনু বাটন Touch Responsive হয়, তাহলে যদি আলো একবার জ্বলে আবার নিভে যায় তাহলে সাথে সাথেই আবার Touch ছেড়ে দিয়ে আবার মেনু বাটনে ক্লিক করে ধরে রাখতে হবে।

#google nexus এর ফোন গুলোতে trackball  রয়েছে। এগুলোতে শুধু মাত্র Trackball চেপে ধরলেই হবে, বুট লগো/Boot logo  আসার সাথে সাথে উপরের প্রক্রিয়া গুলো করতে হবে।


পাঠকের সুবিধার কথা মাথায় রেখে এই পোস্টটি আমরা ২ পর্বে ভাগ করেছি, দ্বিতীয় পর্বে আমরা আলোচনা করবো safe mode চেনার উপায় কি, এর উপকারিতা কি, Safe Mode থেকে নরমাল মুডে কিভাবে করবেন, Safe Mode  কোনো ব্যাবহার করা হয়, গেমস্ খেলায় এর সুবিধা কি, সেফ মুডে কিভাবে গেমস্ খেলবেন, এবং সেফ মুড কতটুকু নিরাপদ? এসব নিয়ে বিস্তারিত  আলোচনা করবো।  অতএব ২য় পর্ব পাওয়ার জন্য First tech bd24 এর সাথেই থাকুন। 

পোষ্টটি সম্পর্কে আপনার যে কোন মতামত কমেন্টে জানাতে ভূলবেননা।

আজ এ পর্যন্তই, ভালো থাকবেন সবাই, আল্লাহ্ হাফেজ।

No comments

Powered by Blogger.