Header Ads

Header ADS

পুরোনো বা সেকেন্ড হ্যান্ড ফোন কেনার আগে যে বিষয় গুলো জানা দরকার।

পুরোনো স্মার্টফোন

বর্তমান সময়ে আমাদের সবার হাতে হতে স্মার্টফোন, স্মর্টফোন ছারা আমাদের প্রতিদিনের পথ চলা প্রায় অসম্ভব হয়ে পরেছে। স্মার্টফোন ব্যাবহারের ফলে আমাদের নিত্যদিনের  কিছু কিছু কাজও সহজ হয়ে গিয়েছে তাই আমরা স্মার্টফোন ব্যাবহারে এতটা আগ্রহী হয়ে উঠেছি, আমরা যে যেভাবে পারছি আমাদের  সাধ্যের মধ্যে একটি  স্মর্টফোন কিনে নিচ্ছি হতে পারে সেটা নতুন বা পুরোনো!
আমরা অনেকেই আর্থিক অসচ্ছলতার কারনে বা প্রয়েজনের তাগিদে অনেক সময় সেকেন্ড হ্যান্ড বা হাতফেরত পুরোনো ফোন কেনার প্রয়োজন বোধ করি।

বাংলাদেশে আজকাল ক্লাসিফায়েড(classified)সাইটগুলোর সাথে তালমিলিয়ে যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধমেও পুরোনো বা সেকেন্ড হ্যান্ড স্মর্টফোন বেচাকেনা হচ্ছে। এসব ফোন কেনার আগে কয়েকটি বিষয় সম্পর্কে আমাদের জেনে নেওয়া জরুরি, নাহলে হতে পারে বিপদ!

চলুন এবার তাহলে জেনে নেওয়া যাক পুরোনো ফোন কেনার আগে কোন কোন বিষয়গুলো সম্পর্কে জানা জরুরিঃ-

  • সর্বপ্রথমেই আমাদেরকে জানতে হবে ফোনটি চোরাই কি না এটা দেখে নেওয়া অত্যান্ত জরুরি।
  • ফোনটির কোন ধরনের রিপেয়ারিং জনিত সমস্যা মানে ফোনটি সাভিসিং করানো হয়েছে কি-না দেখে নিন। 
  • ক্যাশমেমো ও ফোনের বক্স, পুরোনো বা সেকেন্ড হেন্ড ফোন কেনার সময় ফোন কেনার রসিদ ও ফোনর বক্সসহ ফোনর সাথে যেসব যন্ত্রপাতি থাকে এসব চাইবেন। এর মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন ফোনটি চোরাই কি না।
  • পুরোনো ফোন কেনার আগে ফোনের বক্স থেকে আইএমইআই নাম্বারটি চেক করতে পারেন অথবা ফোনের ব্যাটারির নিচে ১৫ ডিজিটের আইএমইআই নাম্বার দেওয়া থাকে আরও সহজে আইএমইআই বের করতে হলে ফোনটির ডায়াল প্যাডে গিয়ে টাইপ করুন *# ০৬# এই নম্বটি তুললে ফোনের স্কিনে আইএমইআই নাম্বারটি দেতে পাবেন। ফোন কেনার আগে অবস্যই এটি চেক করে নিবেন কারন বাংলাদেশের বাজারে অনেক নকল ফোন বিক্রী হয়।
  • হাতবদল বা পুরোনো ফোন কেনার আগে ফোনের ব্যাটারি চেক করে নিবেন কারন নকল ব্যাটারি হলে বিভিন্ন দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন  এছার চার্জেও প্রবলেম  হতে পারে।
  • সেকেন্ড হেন্ড ফোন কেনার আগে র‌্যাম দেখে কিনবেন কমপক্ষে ২ জিবি র‌্যাম কেনা উচিত, পুরোনো ফোন ২ জিবি র‌্যাম এর কম না কেনাই ভালো। 
  • পুরোনো ফোন কেনার আগে আরেকটি গুরুত্বপূর্ন কাজ হলো ফোনের হার্ডওয়্যার পরীক্ষা করা ফোনটি হাতে পেলে নেরে চেরে দেখার সুযোগ হলে দেখে নিবেন ফোনের ক্যাচিং এবং স্কিনে কোন ধরনের আচর বা চির আছে কিনা। এরপর সম্ভব হলে ফোনটিতে সিমকার্ড লাগিয়ে দেখে নিন নেটওয়ার্কে ঠিক মতো কাজ করে কিনা এবং কয়েকটি অ্যাপস্ ডাউনলেড করে দেখুন এগুলো ঠিক মতো কাজ করে কিনা, পারলে কয়েকটি ওডিও, ভিডিও, ফটো, ওপেন করে দেখুন এগুলো ঠিক ভাবে ওপেন হয় কিনা।
  • হাতবদল সেট কেন আগে অবস্যই সেটটির ক্যামেরা ভালো ভাবে চেক করে নিবে ক্যােমেরায় কোন প্রকার সমস্যা আছে কিনা।
  • ফোনটি কোন ধরনের ওয়াটার ড্যামেজ বা লিকুইড ড্যামেজ আছে কিনা অবস্যই তা চেক করে নিবেন, অনেক ফোনে ব্যাটারির নিচে তরল ইন্ডিকেটর ইস্টিকার থাকে যা কোন ধরনের তরলের স্পর্স পেলে রং পরিবর্তন হরয়ে যায়।
  • ফোনটির সবকিছু ঠিক থাকলে লেনদেন করার আগে এবার অনলাইনে এর দাম জাচাই করে নিন।
  • সবশেষে এবার ফোনটির ওয়ারেন্টি বুঝে নিন, কিছু মানুষ অনেক সময় একটি নতুন ফোন কেনার কয়েকদিন পরেই আরেটি নতুন ফোন কেনার দিকে ঝুকে তখন ঐ পুরোনো ফোনটিতে ওয়ারেন্টি থেকে যায়। সবসময় ওয়ারেন্টি যুক্ত সেট কেনার চেষ্টা করুন।
  • যার কাছ থেকে ফোনটি কিনছেন সে আপনার পরিচিত কি-না? অপরিচিত কারও কাছে মোবাইল না কেনাই ভালো। সেক্ষেত্রে আপনার বিড়ম্বনা বা বিপদে পড়ার সম্ভবনা আছে। সম্ভব হলে বিক্রেতার পূর্ণাঙ্গ ঠিকানা, ছবি ও স্বাক্ষর রেখে দিন। এটি আপনার জন্য খুবই সহায়ক হবে। আপনাকে আইনী সহায়তা পেতে বা যেকোন বিড়ম্বনা থেকে মুক্তি দিতে পারে।
উপরুক্ত সব বিষয়গুলো মাথায় রেখে সেকেন্ড হ্যান্ড ফোন কেনার চেষ্টা করুন না হলে ফোন কেনার পরতে পারেন বিভিন্ন ধরনের ভোগান্তিতে।

পোস্টটি সম্পর্কে আপনাদরে মতামত কমেন্টে জানাতে ভূলবেনা এবং আপনাদের কোন প্রশ্ন থাকলে তাও কমেন্টে যানাতে পারে  অবস্যই উত্তর পাবেন।

আজ এপর্যন্তই, ভালো থাকবেন সবাই, আল্লাহ্ হাফেজ।

No comments

Powered by Blogger.